Breaking News

হাত থেকে কুরআন মাজিদ পড়ে গেলে কী করবেন

ভুল বা বেখেয়ালে হাত অথবা কোনো স্থান থেকে পবিত্র কুরআন মাজিদ পড়ে যাওয়া স্বাভা’বিক। কেননা মানুষ স্বাভা’বিকভাবেই ভুল করে থাকে। আল্লাহ তাআলা মানুষকে ইচ্ছা কিংবা অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য প্রার্থনা করলে ক্ষ’মা করে দেন।

কুরআন আল্লাহ তাআলা কিতাব। আর প্রত্যেক মুসলমানই অন্তর থেকেই পবিত্র কুরআনুল কারিমকে সর্বোচ্চ সম্মান করে থাকে। কোনো ব্যক্তিই চায় না যে পবিত্র কুরআনুল কারিমের বিন্দুমাত্র অ’সম্মান হোক। তারপরও অনেক সময় ভূলঃবশত হাত থেকে হোক আর কোনো স্থান থেকে হোক কুরআন পড়ে যায়।

কুরআন পড়ে যাওয়া সম্পর্কে এমন অনেক কথাই আমর’া শুনে থাকি যে, হাত কিংবা কোনো স্থান থেকে কুরআন পড়ে গেছে, আর তাতে করণীয় কী? এর সাধারণ সমাধান হলো-

হাত থেকে কুরআন পড়ে গেলে যা করবেন: যদি কখনো ভুলে হাত থেকে কিংবা কোনো স্থান থেকে কুরআন মাজিদ নিচের দিকে পড়ে যায়, তবে সঙ্গে সঙ্গে দেরি না করে তা ওঠিয়ে নেয়া এবং পবিত্র কুরআনে চুম্বন করা। এ ভুল কৃতকর্মের ক্ষ’মা প্রার্থনায় ২ রাকাআত নামাজ আ’দায় করে নেয়া।

নিচে পড়ে যাওয়ার চেয়েও যে কাজে অ’সম্মানের: কুরআনের সবচেয়ে বড় অ’সম্মান হলো তা বন্ধ করে গিলাফে আব’দ্ধ করে ঘরে ফেলে রাখা। ন্যূনতম মাসে একবার কুরআন পড়াকে বির’ক্ত মনে করা হলো কুরআনের প্রতি সবচেয়ে বড় অ’সম্মান।

গোনাহের কাজ হলো: এমনকি মুসলিম উম্মাহর সে সব লোকদের জন্য সবচেয়ে বড় গোনাহের কাজ হলো যে, কুরআন পড়া সত্ত্বেও সঠিক বার্তাটি উপলব্ধি না করা। কুরআনের সঠিক কথার আমল না করা। অথচ আল্লাহ তাআলা জীবন পরিচালনার জন্য এ কুরআন অবতীর্ণ করেছেন।

কুরআন থেকে শিক্ষা গ্রহণ না করে তা বক্সে ব’ন্দি করে ফেলে রাখাই সবচেয়ে বড় গোনাহের কাজও বটে।

আফসোস! বহু মুসলিম এমন আছে যে, যারা অনেক সুরা মুখস্ত জানেন অথচ এ সুরাগু’লোর অর্থ এবং হুকুম জানে না। তেলাওয়াতে সেসব নিয়ম-কানুন ও বিধান মুখে উচ্চারিত হয় অথচ কাজ করতে থাকে তার বিপরীত। আর তাতে এসব মানুষের সাওয়াবের চেয়ে পাপই বেশি হয়।

মনে রাখতে হবে: ভুলবশতঃ কারো হাত কিংবা কোনো স্থান থেকে কুরআন পড়ে গেলে, সঙ্গে সঙ্গে তা উঠিয়ে নেয়া এবং তা চুম্বন করা। আর এ ভুলের ক্ষ’মা প্রার্থনায় ২ রাকআত নামাজ আ’দায় করে নেয়া।

পাশাপাশি কোনো মুসলমানেরেই উচিত নয় যে, তারা এ পবিত্র গ্রন্থটি গিলাফব’দ্ধ অবস্থায় কিংবা বক্সব’ন্দি করে ঘরে ফেলে রাখা। বরং নির্দি’ষ্ট একটি সময় করে অর্থসহ পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করাই জরুরি।

কেননা পরকালে বিচার ফয়সালার পর দুনিয়ার সব কুরআন তেলাওয়াতকারীর প্রতি নির্দেশ হবে যে, তুমি কুরআন তেলাওয়াত করতে থাকো। সুতরাং কুরআন তেলাওয়াতকারী যতক্ষণ কুরআন তেলাওয়াত করতে থাকবে তার মর’্যাদা তত উঁচু ‘হতে থাকবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে উল্লেখিত ভুল ও করণীয় গু’লোর ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি কুরআনের বিধান বাস্তবায়ন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

About admin

Check Also

একমাত্র ছেলে আব্রামের ধর্ম নিয়ে যা বললেন অপু বিশ্বাস

অপু বিশ্বাস শাকিব খান-অপু বিশ্বাসের সন্তান আব্রাম খান জয়। শাকিবের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যাওয়ার পর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *