Breaking News

এই সেই মহিলা যে কিনা মসজিদের আজানে নাকি ঘুমের ডিষ্টাব হয়, আজান বন্ধ চাচ্ছে!

ভারত এলাহাবাদ : সাতসকালে মাইকে আজানের (Azaan) সুর ভেসে এলে তাঁর ঘুমের প্র/চ/ণ্ড ব্যা/ঘা/ত ঘটে। এমনকী, শুরু হয়ে যায় মাথাব্য’থাও। তাই অবিলম্বে তাঁর বাড়ির কাছে অবস্থিত মসজিদে বন্ধ হোক মাইকের ব্যবহার। এই মর্মে এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের (Allahabad University) উপা’চার্য চিঠি লিখলেন জে’লা’শাসককে।

জে’লা’শাসক তাঁকে আশ্বস্ত করেছেন, আইন অনুযায়ী যা পদক্ষেপ করার তিনি করবেন। এই ঘ’টনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় বিতর্ক শুরু হয়েছে। অনেকেই মাইকে আজান বন্ধ করার পক্ষে সায় দিয়েছেন। পাশাপাশি উলটো কথাও শোনা যাচ্ছে। বিজেপি এই এলাকায় ক্ষ’মতায় আসার পর থেকে এই ধরনের বি’ষয় সামনে আসছে বলে অভিযোগ উঠছে।

এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই উপা’চার্যের নাম স’ঙ্গীতা শ্রীবাস্তব। তিনি জে’লা’শাসক ভানুচন্দ্র গোস্বা’মীর কাছে লেখা ওই চিঠিতে আরও জানিয়েছেন, আজান থেমে গেলেও ঘুম আর আসতে চায় না। মাথা ধরে থাকে। যার প্রভাব পড়ে সারাদিনের কাজে।

তবে তাঁর চিঠিতে তিনি পরিষ্কার করে দিয়েছেন, তিনি কোনও ধর্মের বি’রোধী নন। কিন্তু রমজানের সময় ভোর চারটে থেকে মসজিদের মাইকে যেভাবে ঘোষণা শুরু হয়ে যায়, তাতে এলাকার মানুষদের অসুবিধা হয়। তাঁর চিঠির কপি ইতিমধ্যেই ডিভিশনাল কমিশনারের কাছেও পাঠিয়েছেন তিনি।

এই অভিযোগ ঘিরে শুরু হয়েছে বিতর্ক। অযোধ্যার সন্ন্যাসী ও পুরোহিতরা উপা’চার্যকে সমর্থন করছেন। তাঁদের দাবি, খুব জো’রে না বাজিয়ে যদি মাইকে মাঝারি শব্দে আজান বাজানো হয় তাহলে কারও অসুবিধেই হবে না।

উপা’চার্যকে সমর্থন করে বিবৃতি দিয়েছেন বিজেপি (BJP) মুখপাত্র মণীশ শুক্লা। তাঁর কথায়, ”দেশের সংবিধান ও আইন প্রত্যেককেই অধিকার লঙ্ঘিত হলে প্র’তিবাদের অধিকার দিয়েছে।”

সমাজবা’দী পার্টির মুখপাত্র অনুরাগ ভাদোরিয়া আবার কাঠগড়ায় তুলেছেন বিজেপিকে। তাঁর অভিযোগ, ”যখন থেকে বিজেপি এখানে ক্ষ’মতায় এসেছে, সব ইস্যুর স’ঙ্গেই জাতপাত ও ধর্মকে জুড়ে দেওয়া হয়েছে। উন্নয়নের কোনও চিহ্নই নেই।”

বৃন্দাবনের অভিনয় পছন্দ না স্ত্রীর

বাংলা নাট্য জগতের জনপ্রিয় চিত্রনাট্যকার বৃন্দাবন দাস। অভিনয়ও করেন কালেভদ্রে। ছোটপর্দার অনেক দর্শকই জানেন না যে তিনি নাটক লেখেন। অভিনেতা হিসেবেই যেন তিনি বেশি পরিচিত। তার অভিনয় পছন্দ করেন অগণিত ভক্ত। অথচ বৃন্দাবন দাসের স্ত্রী অভিনেত্রী শাহনাজ খুশিই তার অভিনয় পছন্দ করেন না।

সম্প্রতি একটি সাক্ষাতকারে এমনটাই জানান লেখক কাম অভিনেতা বৃন্দাবন দাস। তিনি জানান, দুই ছেলে সৌম্য ও দিব্যও তার অভিনয় পছন্দ করেন না। তবে তার লেখা স্ত্রী ও ছেলেদের পছন্দ। প্রায় এক বছর পর ‘কাঁটা হেরি ক্ষান্ত কেন’ নামে একটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করছেন বৃন্দাবন দাস। সেই সম্প’র্কে বলতে গিয়ে এসব কথা বলেন অভিনেতা।

এই ধারাবাহিক নাটকটি বৃন্দাবন দাসেরই লেখা। যেটি পরিচালনা করছেন দীপু হাজরা। এখানে তিনি যে চরিত্রটিতে অভিনয় করছেন সেটিতে আরেক নন্দিত অভিনেতা ও গায়ক ফজলুর রহমান বাবুর অভিনয় করার কথা ছিল । কিন্তু তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বায়োপিক-এর কাজে ব্যস্ত থাকায় বা’ধ্য হয়ে পরিচালকের অনুরোধে অভিনয় করছেন বৃন্দাবন দাস নিজেই।

এই অভিনেতা ও লেখক জানান, ‘কাঁটা হেরি ক্ষান্ত কেন’নাটকটিতে তার বিপরীতে অভিনয় করছেন স্ত্রী শাহনাজ খুশি। বৃন্দাবন দাস বলেন, ‘অভিনয় আমাকে টানে না। লেখালেখির কাজটা মনোযোগ দিয়ে করতে চাই। এতে অনেক সময় লেগে যায়। তাছাড়া, অভিনয়ের চেয়ে লেখাটা আমার অধিক পছন্দের। একটা করতে গেলে অন্যটায় ক্ষ’তি হয়। সে কারণে অভিনয় খুবই কম করি।’

নব্বইয়ের দশকে ‘মুক্ত’ নামের একটি নাটক দিয়ে অভিনয়ে যাত্রা শুরু করেছিলেন বৃন্দাবন দাস। ওই নাটকটি লিখেছিলেনও তিনি। সেটি পরিচালনা করেছিলেন সাইদুল আনাম টুটুল। তিনি শেষ অভিনয় করেছিলেন গত বছর ‘প্রতিবেশীকে ভালোবাসো’ নামে সাত পর্বের একটি ধারাবাহিকে। এই মুহূর্তে ঈদের জন্য তিনটি ধারাবাহিক ও পাঁচ’টি খণ্ড নাটক লিখছেন বৃন্দাবন দাস।

About admin

Check Also

একমাত্র ছেলে আব্রামের ধর্ম নিয়ে যা বললেন অপু বিশ্বাস

অপু বিশ্বাস শাকিব খান-অপু বিশ্বাসের সন্তান আব্রাম খান জয়। শাকিবের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যাওয়ার পর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *